Bankura youth in Assam jail for 4 years! Anandabazar Patrika

17, Sep 2021

গঙ্গাধর প্রামাণিক

গঙ্গাধর প্রামাণিক

ডিটেনশন শিবির ছেড়ে মুক্তি পাওয়া দুই আবাসিকের কাছে গঙ্গাধরের খবর পেয়ে ‘সিটিজ়েনস ফর জাস্টিস অ্যান্ড পিস’ সংগঠন তাঁর হয়ে মামলা লড়তে নামে। ইতিমধ্যে করোনা-পর্ব আসে। সুপ্রিম কোর্ট ও হাই কোর্টের নির্দেশে দুই বছরের মেয়াদ পার করা ডিটেনশন শিবিরের আবাসিকদের শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দেওয়া হতে থাকে। কিন্তু আবশ্যিক শর্ত ছিল নিটকবর্তী থানায় হাজিরা, দুই জামিনদারের ব্যবস্থা করা।

সিজেপির কো-অর্ডিনেটর নন্দ ঘোষ জানান, তাঁরা গঙ্গাধরের বাড়িতে যোগাযোগ করে জানতে পারেন, ইতিমধ্যে তাঁর বাবা মারা গিয়েছেন। মা থাকেন বোনের বাড়িতে। গঙ্গাধরের বেঁচে থাকার খবর পেয়ে কেঁদে আকুল হন মা ও বোন। সিজেপির তরফেই জামিনদারের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন জামিনদারও খুঁজতে হয় তিন জন। ফরেনার্স ট্রাইবুনালে দরবার করে এই অনুমতি আদায় করা হয় যে, এ বার থেকে গঙ্গাধর বিষ্ণুপুর থানায় নিয়মিত হাজির হবেন। জামিনে মুক্তির পথে সব বাধা কাটবার পরে আজ ডিটেনশন সেন্টার থেকে বেরোলেন ৩৩ বছর বয়সি গঙ্গাধর।

নন্দ ঘোষই তাঁকে সঙ্গে করে বাঁকুড়া পৌঁছে দিচ্ছেন। আগামিকাল গঙ্গাধরকে রাধানগরের বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার পরে বিষ্ণুপুর থানার সঙ্গে কথা বলে অসমের আদালতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাপ্তাহিক হাজিরার বিষয়টি চূড়ান্ত করে আসবেন নন্দ। অবশ্য বাড়ি যাওয়ার আনন্দে বিভোর গঙ্গাধরকে জানানো হয়নি যে তাঁর বাবা আর নেই।

Translation from Anandabazar Patrika:

 

When ‘citizens for Justice and peace’ came to know about Gangadhar, from two other recently released inmates, they took up his case.

They gathered two bailors and prepared all necessary paperwork so that he can get bail.

CJP coördinator Nanda Ghosh told us that, when they contacted Gangadhar’s family they came to know that his father had passed away and his mother lives with her sister.

When his mother and sister came to know about Gangadhar being alive, they were overwhelmed with emotions and couldn’t stop crying.

CJP organised for his bailors and appealed to the foreigners tribunal so that he is allowed to go to the Bishnupur PS (which is closer to his house) for his weekly appearances.

Nanda Ghosh and his team is also helping Gangadhar reach home. After he is dropped off at his residence in Radhanagar, Nanda would talk to the officer in charge at the Bishnupur PS, so that Gangadhar can make his weekly appearances there, as instructed by the court.

Amidst all this, Gangadhar is still unaware of his father’s demise.

The original piece may be read here

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Go to Top